ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিব ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • বুধবার   ২৮ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১২ ১৪২৭

  • || ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

শেরপুর বার্তা

করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের জন্য আলাদা হাসপাতাল

শেরপুর বার্তা

প্রকাশিত: ৮ মে ২০২০  

পুলিশ বাহিনীর মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় তাদের চিকিৎসার জন্য আলাদা একটি হাসপাতাল নির্দিষ্ট করা হয়েছে। আগামীকাল শনিবার থেকে তেজগাঁও এলাকার বেসরকারি ইমপালস হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দেওয়া হবে। 

বিষয়টি জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের পরিচালক ডিআইজি হাসানুল হায়দার। তিনি বলেন, ‘ইমপালস হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা শুরু হলে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চাপ কমবে।’

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১২ হাজার ছাড়িয়েছে। যার মধ্যে ১ হাজার ৩০০ পুলিশ সদস্য রয়েছেন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৯৩ জন, মারা গেছেন ছয়জন।

পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, ঢাকা মহানগরীতেই ৬৬৬ জন পুলিশ সদস্যের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের বেশিরভাগই ঢাকার রাজারবাগে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এর বাইরে রাজশাহীর বিভাগীয় পুলিশ হাসপাতালেও আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘পুলিশ সদস্যদের আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়তে থাকায় ২৫০ শয্যার কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া জটিল হয়ে পড়ছিল। এ অবস্থায় হাসপাতালে জায়গা না হওয়ায় হোটেলসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশ সদস্যদের কোয়ারেন্টিনে রাখতে হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘কোনো হাসপাতালে নির্দিষ্টভাবে পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসার ব্যবস্থা না থাকায় ওই বেসরকারি হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তি করতে হয়েছে।’

চুক্তিবদ্ধ ইমপালস হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী অধ্যাপক খাদিজা আকতার ঝুমা জানান, তারা দুই মাসের জন্য পুলিশের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন।

অধ্যাপক খাদিজা জানান, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালের নিয়মিত রোগীদের অন্যত্র স্থানান্তর করে শুধু করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য হাসপাতালটি প্রস্তুত করা হয়েছে। চিকিৎসা দেওয়ার ক্ষেত্রে ডাক্তার ও নার্স থাকবে ইমপালস হাসপাতালের। আর পিপিইসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেওয়া হবে পুলিশের পক্ষ থেকে।